• সুখবর........ সুখবর........ সুখবর........ বর্ণমালাকে খুব শিঘ্রই পাওয়া যাবে বাংলা বর্ণমালার ডোমেইন "ডট বাংলায়" অর্থাৎ আমাদের ওয়েব এড্রেস হবে 'বর্ণমালাব্লগ.বাংলা' পাশাপাশি বর্তমান Bornomalablog.com এ ঠিকানায়ও পাওয়া যাবে। বাংলা বর্ণমালায় পূর্ণতা পাবে আমাদের বর্ণমালা।

গল্পের আসর।। আখলাকুর রহমান

K.M. Akhlak

নতুন ব্লগার
#1
images-12-jpg.53

কবিতা: "গল্পের আসর"
লেখা: আখলাকুর রহমান

বেশ করে ভাব ধরে বসলাম দাদুর পাশে,
মস্ত ভালো গল্প কহে, মোদের ধরা আশে।
নড়েচড়ে বসলেন তিনি, হাঁক ছাড়লেন ঘরে,
"কইগো গিন্নি, চা দাও জলদি। মুড়ি দিও ওদের তরে"।
দিদার বাণী ভেসে এলো মোদের কর্ণগর্ভে,
"এলাম বলে" ধ্বনিতে খুশি ছোট্ট আসর মর্মে।
গোটা দশেক পিচ্চি মোরা, বায়না করে সেরা পাজি,
ঠোঁটের কোণে আলতো হাসি! দাদু বলবে গল্প, হয়েছে আজ রাজি।
(২)
চা হাতে দিদা হাজির সঙ্গী বেতের ধামায় মুড়ি,
কুপির আলোয় চকচকিয়ে সোনালি রঙের চুড়ি।
মুড়ি মুঠিয়ে ছোট্ট পুটু বলল নীরব সুরে,
"দাদু, গপ্প বলো গপ্প"।
তোতলামিতে হয়ে উঠল আসরময় রম্য।
চায়ের কাপে ছল্যাৎ চুমুক, "শোনো তবে সবে",
দাদু বললেন মিষ্টি হেসে তাকিয়ে মোদের পানে।
(৩)
দাদুর কণ্ঠে শুরু হলো শিক্ষায় ভরা গল্প,
দুষ্টুমি আর হাসাহাসি থাকবে তাতে অল্প।
"পুরোনকালে এক দেশেতে ছিল ছোট্ট একটা খুকি,
এই ধরাতে তার চেয়ে হবে না অন্য কেউ দুঃখী।
পথের ধারের ডাস্টবিনটা সকাল বেলার সাথী,
খুঁজে খুঁজে পেয়ে যেত খাবার কিছু বাসি।"
"কেন দাদু? রুটি-জেলীর স্বাদটা তার খারাপ লাগে বুঝি?"
গল্পের মাঝে বাঁধ আটলো মোদের বন্ধু টুশি।
"ওসব তার ব্যাপক চাওয়া, কিন্তু কে দেবে এই পাওয়া?
দেশ জুড়ে সবাই ব্যস্ত, আপন আপন স্বার্থের ধাওয়া।"
"তাই বলে কি বাসি খাদ্য খাওয়া হবে শোভা?"
আস্তে করে বলে উঠল মিষ্টি খুকি নোভা।
"বাসি খাবার রোগ ছড়াবে, বলেছে স্কুলের আপা",
নোভার কথায় সায় জুটালো পুচকি মেয়ে সাফা।
"ঠিক বলেছ, বাসি খাদ্য অতি নিচ! খেলে রোগ হয়,
কিন্তু খুকির পেটে ক্ষুধা, না খেলে কি শরীর রয়!"
(৪)
পুটু বলল, তারপরেতে কী হলো বলো দাদু বলো,
গপ্প শুনতে বেশ লাগে, তুমি বলেই চলো।
"শোনো তবে, রাতের বেলা রেললাইনের কিনারা হতো ঘর,
এটাই তার প্রাণের জায়গা, যতই আসুক বৃষ্টি-ঝড়।"
"বাবা-মা কোথায় থাকে? কেউ কি নেই খুকির?"
প্রশ্ন জাগল মুখের কোণে পরিচিত রকির।
"ছোট্টকালে সব হারিয়ে এখন একা খুকি,
তাই তো বলি এই ধরাতে সেই সবচেয়ে দুঃখী।
এক রাতে খুকি ছিল গভীর ঘুমের দেশে,
রেল গাড়িতে লাইনচ্যুত! এল দানবের বেশে।
খুকির দেহ পিষে গেছে, নেই আর বেঁচে,
ডাস্টবিনটা এখনো দাড়িয়ে খুকির পথে চেয়ে।"
(৫)
চোখ দিয়ে জল ঝরে আসরে বসে সবার,
দাদুও চুপ! একটু থেমে বলতে শুরু আবার।
"খুকির মতো বহু শিশু মরছে আজও পিষে,
মরণ যাদের পরিণতি হয় অবশেষে।"
কান্নাস্বরে বলে সাফা, "ওদের কি বাঁচানোর কেউ নেই?"
"বাঁচালে বাঁচবে! যদি মোরা ওদের সন্তানতুল্য ঠাঁই দেয়।"
(৬)
আসর শেষে পণ করলাম সবাই হাতে হাত,
"ওদেরকে বাঁচাতে চাই, কাটাবে ওরা নিশ্চিন্তে রাত।
দিন শেষে মানুষ মানুষেরই হোক! এটাই কামনা,
জীবন গেলে ফিরবে না, বরং জীবন আনুক নিত্য মোহনা।
________​
 
Last edited by a moderator:

বর্ণমালা এন্ড্রয়েড এপ

নতুন যুক্ত হয়েছেন

Top