নামাযে হাত বাধাঁর আলোচনা,

Khaled Al Mahmud

সুপার ব্লগার
#1
নামাযে হাত বাধার আলোচনা ৷৷

হযরত ওয়াইল ইবনে হুজর রাঃ হতে বর্ণিত ৷তিনি নবী সঃ কে দেখেছেন যে তিনি যখন আল্লাহু আকবার বলে নামাযে প্রবেশ করলেন তখন দু হাত উটালেন ৷
অতপর নিজ কাপড় দ্বারা উভয় হাত ঢাকলেন ৷
তারপর ডানহাত বাম হাতের উপর রাখলেন ৷
আর যখন রুকুতে যাওয়ার ইচ্ছা করলেন তখন কাপড়ের মধ্যে হতে হস্তদয় বের করলেন অতপর হাত উপরে উটালেন এবম আল্লাহু আকবার বললেন এবং রুকু করলেন৷আর যখন সামিআল্লাহুলিমান হামিদাহ বললেন তখন দু হাত
উটালেন, অতপর সেজদা করলেন দুহাতের পাতাৱ মধ্যেখানে ৷--- মুসলিম
উক্ত হাদীসের ব্যাখ্যা৷৷৷৷৷
ইমাম মালিক রহঃ এর মতে হস্তদ্বয় ছেড়ে দেয়া সুন্নাত
জামহুর আইম্মা ইমাম আবু হানিফা শাফেয়ী ইমাম আহমদ রহঃ এর মতে হাত বাধা সুন্নাত ৷ইমাম মালিক রহঃ এর আরেক মতে অনুরুপ বর্ণনা রয়েছে ৷
জামহুর পরস্পরে হাত বাধার পদ্বতি নিয়ে মতভেদ হয়েছে ৷
ইমাম শাফেয়ী রহঃ এর প্রশিদ্ব মত হলো যে সিনার উপর বাধা সুন্নাত এবং আহমদ রহঃ এর অনুরুপ একটি মত রয়েছে ৷ইমাম আবু হানীফা রহঃ এর মতে নাভীর নিচে বাধা সুন্নাত এবং ইমাম আহমদ রহঃ এর মতে যেখানেই ইচ্ছা সেখানেই বাধা যাবে ৷
এখন ইমাম শাফেয়ী দলীল পেশ করেন ওয়াইল ইবনে হুজর রহঃ এর হাদীসের ঐ সুত্র দ্বারা যা সহীহ ইবনে খুজায়মায় রয়েছে فوضع يده اليمني علي اليسري علي صدره অর্থ তার হাতদ্বয় ডান হাত বাম হাতের উপরে বুকের উপর৷
এখন ইমাম আবু হানীফা রহঃ এর প্রথম দলীল এই ওয়াইল রাঃ এর হাদীসের ঐসুত্র যা মুসান্নিফে ইবনে আবু শায়বার মধ্যে রয়েছে ৷যেখানে تحت السترة শব্দ রয়েছে ৷অর্থ হলো নাবীর নিচে৷৷
এবং এর সনদ প্রথম সুত্র ওয়াইল রাঃ এর সনদ
থেকে অনেক উত্তম ৷
আবু হানীফার দ্বিত্বীয় দলীল হযরত আলী রাঃ এর আসর আবু দাউদ শরীফের মধ্যে আছে قال من السنة وضع الكف علي الكف في الصلاة تحت السرة আর উসুলে হাদীসের নি়য়ম হলো
, যখন সাহাবী من السنة এই শব্দ বলেন তখন এটা হুকুম অনুযায়ী হাদীস মার'ফু হয়ে যায় ৷
এছাড়া অন্য আসর দ্বারাও এর এহাদীসের প্রতি সমর্তন পাওয়া যায় ৷যেমন আবু সায়ীদ রাঃ এর আসর রয়েছে এর প্রতি মুসান্নিফ ইবনে আবু শায়বার মধ্যে এবং হযরত আবু হুরায়রা রাঃ এবং হযরত আনাস রাঃ এর আসর রয়েছে এর প্রতি, তাহাবী শরীফের মধ্যে ও এরুপ ভাবে৷৷

এখন উক্ত শাফেয়ী রহঃ এর দলীলের উত্তর৷৷৷
এই সুত্রে একজন রাবী হলেন মাওমাল ইবনে ইসমাইল, তার শেষ জীবনে বর্ণনা সংমিশ্রণ অর্থাৎ اختلاط হয়েগেছিলো ৷
অতএব এই সুত্রটি যয়ীফ ৷
আরো অনেক ইমাম ও আলিম বলেছেন যে علي صدره অর্থ বুকের উপর হাত রাখা অনেক সীমিত৷ অতএব, এটা দলীল উপস্তাপনের উপযুক্ত নয়৷ তাই অধিকের মতে নাবীর নিচে হাত বাধা অতি অগ্রগণ্য
৷৷৷৷
অতবা ইহা ৱাসূল সাঃ বৈধতা বর্ণনার জন্য মাযে মধ্যে এরুপ করেছেন
বস্তুত সর্ববস্তায় যখন হাত বাধা জায়েয হওয়া নিয়ে মতভেদ নেই ৷
সুতরাং আল্লাহ ভালো জানেন ৷

বিঃ দ্রঃ উক্ত হাদীস এবং হাদীসের ব্যাখ্যা মিশকাতুল মাসাবীহ গ্রন্হে আছে অধ্যায় হলো নামাযের নি়য়ম ৷
হাদীস নং 741৷৷৷৷
লেখক খালেদ আল মাহমুদ৷
 

ফাহাদ তানিম

এক্টিভ ব্লগার
#4
তথ্যবহুল ইসলামিক পোষ্ট করার জন্য আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি।ধন্যবাদ।
 

Khaled Al Mahmud

সুপার ব্লগার
#5
তথ্যবহুল ইসলামিক পোষ্ট করার জন্য আমি অনুপ্রাণিত হয়েছি।ধন্যবাদ।
আপনাদের স্বাগতমে আমি কৃথার্থ
অজস্র ধন্যবাদ প্রিয়
 

বর্ণমালা এন্ড্রয়েড এপ

নতুন যুক্ত হয়েছেন

Top