নীরব ভালবাসা (১ম পর্ব) ।। আদ্বীহা তাসনীম

#1
images-16-jpeg.268

রাহাত শপিং করে এসে মা মা বলে চিৎকার করতে থাকে।
মা: কি হয়েছে এইভাবে ডাকতেছিস কেন?প্যাকেট গুলা নাও আর আমাকে খেতে দাও।সিমু কই?আর সব জিনিস ঠিকঠাক আছে কিনা দেখে নিত বল,রাহাত উহশিট মোবাইলটা তো গাড়ি তে রেখে আসলাম বলে জানালার কাছে গিয়ে কাকে যেন মোবাইলটা নিয়ে আসতে বলল,ঠিক তখনি পিছন থেকে ইরা বলে উঠল সরেন সরেন,রাহাত অবাক হয়ে যায় মনে মনে বলে মেয়েটা আবার কে আর আমাকেই বা সরতে বলছে কেন।ঠিক তখনি ইরা আবার বলে উঠে আরে ভাই সরতে বলছি তো আপনাকে,রাহাত ওহ সরি বলে চলে আসে।ফ্রেশ হয়ে খেতে বসে,মা মেয়েটা কে,মা আরে এটা তুর নীলিমা আনটির মেয়ে ইরা,রাহাত কোন নীলিমা আনটি আরে গ্রামে তুর নানুর বোনের মেয়ে নীলিমা,রাহাত ওহ আচ্ছা,তো মেয়েটা এখানে কেন আসছে?মা তুর বাবা গ্রামের বাড়িতে তুর খালাদের দাওয়াত করতে গয়েছিল আর আসার সময় ইরাকে নিয়ে আসে সিমুকে সাজানোর জন্য এই আর কি।রাহাত এই পিচ্চি সাজাবে সিমুকে এই গাইয়্যা মেয়েটা মা তুমি কি পাগল হয়ে গেছ?ইরা এই যে মিস্টার মোটেই ও গাইয়্যা বলবেননা আর আমি পিচ্চি না,আমি মোটেই ও পিচ্চি নই যতেষ্ট বড় হয়েছি আমি।রাহাত তো ইরার কথা শুনে হা হয়ে যাই।সিমু ভাইয়া তুই কি একটা জিনিসও কি ঠিক মত আনতে পারিস না,আমি তুকে কি আনতে বলছি আর এটা তুই কি আনলি,রাহাত কেন কি হয়েছে লাল হলুদ সাদা রং তো আনলাম,সিমু আমি তুকে আলপনার রং আনতে বলছি এটা আনতে বলিনাই,এগুলা দিয়ে কি আলপনা হয়।ইরা এগুলা দিয়ে তো গাড়ির পিছনে মায়ের দোয়ায় চললাম এগুলা লিখা হয়,হায়রে শহরের মানুষ এখনো আলপনার রং চিনেনা আবার আমাকে বলে গাইয়্যা হি হি বলে ইরা উকান থেকে সিমুর সাথে চলে যাই...।
এদিকে রাহাত মেয়েটা ফাজিল তো পিচ্চি হলে কি হবে ঝাল তো আছে দেখা যাচ্ছে...।

সকালে ইরা ছাদে বসে বসে আলপনা দিচ্ছে এমন সময় রাহাত ছাদে গিয়ে ইরার পিছনে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকে,আর মনে মনে বলে মেয়েটা পিচ্চি হলে কি হবে অনেক সুন্দর করে আলপনা করতে পারে।ইরা পিছনে রাহাত আছে বুঝতে পেরে বলে উঠে....।
,
,
,
,
চলবে.....
 

Noman Sadi

নতুন ব্লগার
#2
পর্বগুলো আর একটু বড় হলে ভালো হতো! লেখা চমৎকার লেগেছে!
 

বর্ণমালা এন্ড্রয়েড এপ

ফেসবুকে বর্ণমালা ব্লগ

নতুন যুক্ত হয়েছেন

Top