সত্য কিন্তু তিক্ত

নাবিল হাসান

সুপার ব্লগার
#1
আমাদের স্বভাবটা এমনই।এটা যতদিন বদলাবেনা ততদিন আমাদের মাঝে শান্তি আসবেনা। আমরা ফরযটা ছেড়ে নফল,মুস্তাহাব নিয়ে বেশি মাথা ঘামাই।এবং এটা নিয়ে এতো গবেষণা করি,ফরয ওয়াজিব নিয়ে তার সিকি ভাগও করিনা।

★আমার এক উস্তাদ একদিন বলছিলেন,তার পাশের গ্রামের একটা ঘটনা।ঐ গ্রামে ওয়ায চলছিলো এবং এক পর্যায়ে সবাই মিলাদ পড়ার জন্যে দাড়িয়ে গেল। কিন্তু পাশের গ্রাম থেকে আসা এক ব্যক্তি দাঁড়াল না।এতে রাগান্বিত হয় লোকেরা তাকে মারধর করে তাড়িয়ে দিলো। লোকটি তার গ্রামে যাওয়ার পর তার গ্রামের লোকেরা বলল, তুমি দাড়িয়ে মিলাদ না পড়লে আমরা তোমাকে গ্রাম থেকে বের করে দেবো।

★দেখেন মিলাদ কিন্তু ফরয,ওয়াজিব, সুন্নত,নফল কিছুই না।লোকেরা নবীর মহব্বতে এটা পড়ে থাকে,আবার কেউ পড়েনা।যাইহোক, ঐ লোকেরা যদি এমন সিদ্ধান্ত নিতো যে,যারা নামাজ পড়বেনা,নামাজ ছেড়ে দিবে তাদের কে গ্রাম থেকে বের করে দেয়া হবে।কিন্তু না তারা এটা করেনা।বরং তারা ফরয নামাজ থেকে মিলাদ,রফুল ইয়াদাইন,তারাবী ৮ না ২০ ইত্যাদি বিষয় কে বেশি প্রাধান্য দেয়।তারা এগুলার ব্যাপারে দলিল দেখায় শত শত কিন্তু নামাজ সহ অন্যান্য ফরয ইবাদতের ক্ষেত্রে গা ছাড়া।

★সুতরাং,আমাদেরকে এগুলা পরিহার করতে হবে।ইসলাম শান্তির ধর্ম,এখানে বাড়াবাড়ি করা যাবেনা।তবেই সমাজে,রাষ্ট্রে সর্বত্র শান্তি আসবে।
.আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করেন,আমিন।

-নাবিল হাসান।।
 
Last edited by a moderator:

Khaled Al Mahmud

সুপার ব্লগার
#2
আমাদের স্বভাবটা এমনই।এটা যতদিন বদলাবেনা ততদিন আমাদের মাঝে শান্তি আসবেনা। আমরা ফরযটা ছেড়ে নফল,মুস্তাহাব নিয়ে বেশি মাথা ঘামাই।এবং এটা নিয়ে এতো গবেষণা করি,ফরয ওয়াজিব নিয়ে তার সিকি ভাগও করিনা।

★আমার এক উস্তাদ একদিন বলছিলেন,তার পাশের গ্রামের একটা ঘটনা।ঐ গ্রামে ওয়ায চলছিলো এবং এক পর্যায়ে সবাই মিলাদ পড়ার জন্যে দাড়িয়ে গেল। কিন্তু পাশের গ্রাম থেকে আসা এক ব্যক্তি দাঁড়াল না।এতে রাগান্বিত হয় লোকেরা তাকে মারধর করে তাড়িয়ে দিলো। লোকটি তার গ্রামে যাওয়ার পর তার গ্রামের লোকেরা বলল, তুমি দাড়িয়ে মিলাদ না পড়লে আমরা তোমাকে গ্রাম থেকে বের করে দেবো।

★দেখেন মিলাদ কিন্তু ফরয,ওয়াজিব, সুন্নত,নফল কিছুই না।লোকেরা নবীর মহব্বতে এটা পড়ে থাকে,আবার কেউ পড়েনা।যাইহোক, ঐ লোকেরা যদি এমন সিদ্ধান্ত নিতো যে,যারা নামাজ পড়বেনা,নামাজ ছেড়ে দিবে তাদের কে গ্রাম থেকে বের করে দেয়া হবে।কিন্তু না তারা এটা করেনা।বরং তারা ফরয নামাজ থেকে মিলাদ,রফুল ইয়াদাইন,তারাবী ৮ না ২০ ইত্যাদি বিষয় কে বেশি প্রাধান্য দেয়।তারা এগুলার ব্যাপারে দলিল দেখায় শত শত কিন্তু নামাজ সহ অন্যান্য ফরয ইবাদতের ক্ষেত্রে গা ছাড়া।

★সুতরাং,আমাদেরকে এগুলা পরিহার করতে হবে।ইসলাম শান্তির ধর্ম,এখানে বাড়াবাড়ি করা যাবেনা।তবেই সমাজে,রাষ্ট্রে সর্বত্র শান্তি আসবে।
.আল্লাহ আমাদের তাওফিক দান করেন,আমিন।

-নাবিল হাসান।।
জ্বী ইসলাম নিয় বাড়াবাডি়় ঠিক না ধন্যবাদ সহমত
 
Last edited:

বর্ণমালা এন্ড্রয়েড এপ

নতুন যুক্ত হয়েছেন

Top