সমাজচ্যুত মা।।নীলা রহমান

Nila Rahman

নতুন ব্লগার
#1
download-4-jpeg.169

খুব ছোটবেলায় মা মারা গেলো। মা এর জায়গাটা পূরণ করতে অন্য আর একজন মহিলা এলো। বাবা বললেন ইনি তোমার নতুন মা। আমিও অবুঝ শিশু বাবা যা বললেন আমি তাই বিশ্বাস করলাম। নতুন মা কে মা মনে করতে শুরু করলাম। মা এর অভাবটা আস্তে আস্তে ঘুচে যেতে লাগলো।

মা মারা যাওয়ার পর খুব একা লাগতো নিজেকে। এখন আর তেমন লাগে না। ভালোই লাগে। নতুন মা নিজে হাতে খাবার খাইয়ে দেয়, চুল বেঁধে দেয়, স্কুলে যাওয়ার জন্য রেডী করিয়ে দেয়। স্কুল থেকে ফেরার আগে পর্যন্ত খুব ছটফট করে হয়ত। বাসায় ফিরতেই ঝাপটে ধরে চুমু খায়।

আমার মনে হয় আমি খুব সুখী। কিন্তু আমার আশে পাশের মানুষ গুলো বলে আমি সুখী নই। আমার নতুন মা নাকি আমার সৎ মা। আচ্ছা মা তো মা ই হয় তাহলে ওরা কেন বলে যে নতুন মা সৎ মা! ওরা তো এসবও বলে যে আমার নতুন মা আমাকে একটুও ভালোবাসে না। কিন্তু মা তো আমাকে খুব ভালোবাসে। তাহলে ওরা এসব কেন বলে!

আজকে আমার স্কুল ফ্রেন্ড ইয়াশ এর মা আমাকে কাছে ডেকে বললেন।

- ইশ, চেহারাটা কেমন যেন হয়ে গিয়েছে। কতটা শুকিয়ে গিয়েছ। তোমার সৎ মা তোমার যত্ন নেয় না বুঝি? ঘরে সৎ মা থাকলে এমনই হয়।

আমি কিছু বলার আগেই রাতুলের মা রুমি আন্টি উনাকে বললেন।

- এভাবে কেন বলছেন? আমি তো দেখছি নীলা একদম ঠিক আছে। আসলে কী জানেন তো আপনাদের মনে একটাই ধারণা যে নীলার বাসায় ওর সৎ মা রয়েছে। আচ্ছা সৎ মায়েরা কী মা হতে পারে না? ওদের মাঝে কী ভালোবাসা থাকতে পারে না? আসলে কী জানেন তো আমরা মানুষের দোষটা খুঁজার চেষ্টা করি ভালো টা কখনো চোখে পরেনা।
- ভাবী আপনি যেভাবে বলছেন মনে হচ্ছে আমি খুব ভুল কিছু বলে ফেলেছি! খেয়াল করে দেখেছেন ওর ঐ মা কখনো ওকে নিয়ে স্কুলে আসে! কই আসে না তো! যদি নিজের মেয়ে হতো তাহলে ঠিকই ওকে নিয়ে স্কুলে আসতো।

এরপর উনাদের মাঝে আরো কিছু সময় কথা কাটা কাটি চললো।

কিন্তু আমার মনে কয়েকটা প্রশ্ন বার বার আসছে। সৎ মা কী? সবাই আমার মাকে সৎ মা বলে কেন? সবাই তো এটাও বলে যে আমার মায়ের ভালোবাসাটা নাকি লোক দেখানো মা নাকি আমাকে মন থেকে ভালোবাসে না। তাহলে কী সবার এই কথাটাই সত্যি?

বাসায় আসতেই মা প্রতিদিনের মতই আমাকে আদর করলো। কিন্তু আজকে আমার কিছু ভালো লাগছে না মনে হচ্ছে সবকিছু মায়ের ন্যাঁকামো। আমি মাকে সরিয়ে দিয়ে রুমে চলে এলাম। প্রচণ্ড রকম মন খারাপ নিয়ে বিছানায় শুয়ে রইলাম।

কিছুক্ষণ পর মা খাবার নিয়ে আমার রুমে এলো।

- কী রে মা ড্রেসটাও চেঞ্জ করিসনি এখনো। আচ্ছা বল তো এখনো কী আমাকে তোর ড্রেস চেঞ্জ করে দিতে হবে? আচ্ছা আয় আমিই চেঞ্জ করিয়ে দিচ্ছি।
- এত কথা কেন শুনাচ্ছো? কে বলেছে আমাকে নিয়ে এত চিন্তা করতে? তুমি যাও তো এখান থেকে। আমার কাজ আমি করতে পারলে করবো না পারলে করবোনা। তুমি একদম কথা শুনাতে আসবে না। আর কে তুমি আমায় এত কথা শুনানোর? তুমি তো আমার সৎ মা।

আমার কথা গুলো শুনে মায়ের চোখ দিয়ে টপ টপ করে জল গড়িয়ে পরছে। তাতে আমার একটুও খারাপ লাগছে না। কেন যেন এই সৎ মা কথাটা শুনতে শুনতে মায়ের প্রতি ভালোবাসাটাই আর নেই।

মা বেশ কয়েকবার খাবারটা খেতে বললো। আমি প্রচণ্ড ঘৃণায় আর কষ্টে খাবার গুলো ছুঁড়ে ফেলে দিলাম। অশ্রুসিক্ত নয়নে ঘর থেকে বেড়িয়ে গেলো মা।

বিছানায় পরে অনেকটা সময় কান্না করলাম আর মায়ের কথা ভাবতে লাগলাম। ছোট থেকে তো আমি আমার মা কে পাইনি ইনিই তো আমাকে আদর, ভালোবাসা দিয়ে মানুষ করলেন তাহলে আজ কেউ একজন দুটো বাজে কথা বললো আর অমনি আমি মায়ের মনে এতটা আঘাত দিলাম। নিজেকে বড্ড অপরাধী মনে হচ্ছে।

আমি ছুটে গেলাম মায়ের কাছে। মাকে জড়িয়ে ধরে খুব কাঁদলাম। মা আমার কপালে একটা চুমু দিয়ে বললেন পাগলি মেয়ে আমার কী হয়েছে মা? কেউ কিছু বলেছে তোকে?

আমি মায়ের কাছে সবটা বললাম। মা মুচকি হেসে বললেন। আরে পাগলি এটা তো বললেই হতো যে তুই আমায় তোর সাথে স্কুলে যেতে বলিস। তুই একবার বললেই আমি ঠিক যেতাম তোর সাথে। আচ্ছা কাল থেকে আমি তোর সাথে যাবো কেমন? মন খারাপ করেনা মা। আর শোন বাইরের কারও কথায় একদম কান দিবি না বুঝলি?

এরপর থেকে আমি রোজ মাকে নিয়ে স্কুলে যাই। এখন আর কেউ কিচ্ছু বলেনা। আমারও আর কখনো মন খারাপ হয়না।

কিছুদিন পর হঠাৎ মায়ের খুব শরীর খারাপ হয়। ডাক্তার জানায় আমার ভাই - বোন আসবে পৃথিবীতে আমি খুব খুশী হলাম।

আবারও আমার পাশের লোক গুলো নানা ধরনের কথা বলতে শুরু করলো। এখন নাকি মা আর আমাকে ভালোবাসবে না। তার অনাগত সন্তানকেই ভালোবাসবে। আমি আর এসবে কান দিলাম না। আমি ভাবলাম সবকিছুই মিথ্যা আমার মা আমাকে আগের মতই ভালোবাসবে।

কিন্তু কিছুদিন পর থেকে আমি বুঝতে পারছিলাম যে মা কেমন যেন পাল্টে যাচ্ছে।

এখন আর আগের মত কাছে কাছে থাকে না আমার। সবসময় কাছে বসিয়ে খাওয়ায় না। আগের মত ভালোও বাসে না। আমার প্রচণ্ড মন খারাপ হয় কিন্তু মা বুঝতেও পারে না। কেন এমন হচ্ছে! আগে তো মা আমার একটু মন খারাপ হলেই বুঝে যেতো। আর এখন যে আমি ভেতরে ভেতরে এতটা কষ্ট পাচ্ছি মা কী তা বুঝতে পারে না! নাকি আমি কষ্ট পেলে মায়ের কিছু যায় আসে না!

সারাক্ষণ শুধু একটা কথাই ভাবি আমি কী আমার সেই মাকে হারিয়ে ফেললাম আমার মা কী আমায় আর আগের মত করে ভালোবাসবে না! তাহলে আমি কাকে নিয়ে বাঁচবো।

হাজারো কষ্টেরা এসে ভীর জমায় আমার দোয়ারে। তবুও মাকে আমি কিচ্ছু বলি না যদি মা কষ্ট পায়। মাঝে মাঝে খুব ইচ্ছে হয় মা আমায় একটু বুকে জড়িয়ে নিক। কিন্তু মা কখনো সেভাবে আর ডাকে না। আর আমিও প্রচণ্ড অভিমানে মায়ের কাছে যাই না। এভাবেই দূরত্ব বাড়তে থাকে আমাদের।

দেখতে দেখতে সময় চলে গেলো।

আজ সন্ধ্যায় মায়ের কোল জোড়ে আমার ছোট্ট একটা বোন এলো সবাই মাকে আর বোন কে
নিয়ে ব্যস্ত। আমি চাইছিলাম মাকে আর বোন কে একটু মন ভরে দেখবো। এরপর হয়তো আর দেখতে পারবো না। তেমন ভাবে আর দেখা হলো না। বেড়িয়ে আসছিলাম হসপিটালের ব্যাড থেকে।

আমার মনে হচ্ছিলো মা আমাকে ডাকবে কিন্তু কই মা তো আমায় ডাকছে না। দরজার কাছে এসে আরেকবার পিছু ফিরে তাঁকাতে ইচ্ছে করছিলো। আরেকবার মায়ের মুখটা দেখার সুযোগ মিস করতে পারলাম না। পিছন ফিরে দেখি আমার মা আমার দিকে তাঁকিয়ে আছে। চোখ দুটো ছল ছল করছে। আমার দিকে হাত দুটো বাড়িয়ে দিলো। আমিও এক ছুটে মায়ের বুকে আশ্রয় নিলাম।

- কী করে ভাবতে পারলি মা আমি তোকে ভুলে গেছি! আরে পাগলি একটা মায়ের যদি দশটা সন্তান থাকে মা তার সব সন্তান কে একই রকম ভালোবাসে। মায়ের ভালোবাসা কখনো ভাগ হয় না। আমার প্রথম সন্তান তুই। আর শোন সৎ মা শব্দটা খুব কঠিণ এই শব্দটাকে ঘৃণা কর কিন্তু মা কে নয় কারণ মা মা ই হয় মায়ের কোনো প্রকার হয় না। মা আমায় হাজারটা চুমু খেলো।

মায়ের এই কথা গুলো শুনে আমি বুঝতে পারলাম। আমি এতদিন যেই বাজে চিন্তা গুলো করে আসছিলাম তার একমাত্র কারণ হলো মানুষের মুখের আজাইড়া সব কথা বার্তা। আসলে মায়েরা কখনো তার কোনো সন্তানকে ভুলে যায়না।

সবার উদ্দেশ্যে একটি কথা মা তো মা ই হয় তাহলে এখানে মা কে আমরা ভাগ করে দেখবো কেন? সৎ মা শব্দটাকে সত্যিই আমরা ঘৃণা করি অথবা ভয় করি। কিন্তু কখনো কখনো পরিস্থিতি আমাদের সাথে সেই শব্দটার পরিচয় করায়। আর আশে পাশের মানুষ গুলো আমাদেরকে এমন ভাবে শেখায় যেন ঐ শব্দটা আমাদের জীবনে সবথেকে বড় অভিশাপ। আসলে সবসময় এমনটা হয়না। সৎ মায়েরাও মা হতে পারে যদি আমরা তাদেরকে ভালোবাসতে পারি আর আমাদেরকে ভালোবাসার একটু সুযোগ করে দিতে পারি।


--সমাপ্ত--
 
Last edited by a moderator:

Sakir

Administrator
বর্ণমালা স্টাফ
#2
Wow..:love:
 
Last edited:

Noman Sadi

নতুন ব্লগার
#3
ভেতর থেকে কিছু ভালোবাসা রেখে গেলাম গল্পটার জন্যে! ?
 

বর্ণমালা এন্ড্রয়েড এপ

ফেসবুকে বর্ণমালা ব্লগ

নতুন যুক্ত হয়েছেন

Top